আজ ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২১শে এপ্রিল, ২০২৪ ইং

আশুলিয়ায় সড়কের জলবদ্ধতা থেকে মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ ঢাকার আশুলিয়ায় টঙ্গী-আশুলিয়া-ইপিজেড সড়ক ও বিভিন্ন শাখা সড়কের জলাবদ্ধতা নিরসন, নিরাপদে কর্মস্থলে যাতায়াত ব্যবস্থা ও জলবদ্ধতা মুক্ত আশুলিয়াসহ বিভিন্ন দাবিতে সড়কের ময়লা পানিতে নেমে প্রতিবাদ করেছে শ্রমিক নেতা সহ স্থানীয়রা।
শনিবার (৭ অক্টোবর) দুপুরের দিকে বাইপাইল-আব্দুল্লাহপুর সড়কের ইউনিক এলাকায় এ বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করা হয়। এতে বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠনের নেতাকর্মীসহ স্থানীয় প্রায় শতাধিক লোক অংশগ্রহণ করেন।
প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তারা বলেন, সড়কের জলাবদ্ধতার প্রধান কারণ খাল বন্ধ, অবৈধ দখল ও নির্মাণ, এবং ড্রেনেজ ব্যবস্থার অব্যবস্থাপনা। এ সমস্যা সমাধানে সরকারকে খাল খনন, অবৈধ দখল ও নির্মাণ উচ্ছেদ, এবং ড্রেনেজ ব্যবস্থার উন্নয়নে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। আমরা জলবদ্ধতা মুক্ত সড়ক চাই, যেই সড়ক দিয়ে নিরাপদে কর্মস্থলে যাতায়াত করতে পারবো। আমরা জলবদ্ধতার দুর্ভোগ চাই না। তাই সরকারের নিকট আমাদের দাবি আমরা এই ধরণের দুর্ভোগ থেকে মুক্তি চাই।
গার্মেন্টস শ্রমিক, শ্রমজীবী ও ভাড়াটিয়া পরিষদের নেতা এবং ঢাকা-১৯ আসনের সতন্ত্র প্রার্থী সারোয়ার হোসেন বলেন, আমাদের আশুলিয়ায় লক্ষ লক্ষ মানুষের বসবাস। আমরা আশুলিয়াকে জলাবদ্ধতা মুক্ত চাই। যুগের পর যুগ বছরের পর বছর জলাবদ্ধতা থাকে এই সড়কে। এই অঞ্চলের জন প্রতিনিধি, সরকারী কর্মকর্তারা বিভিন্ন আশ্বাস দিয়ে থাকলেও ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকার কারণে, অপরিকল্পিতভাবে কারখানা ও বসত-বাড়ি করার কারণে এবং নয়নজুলি খাল ভরে যাওয়ারও কারণে এখানে কৃত্রিম বন্যা হয়ে যায়। এই সড়কের দুই পাশের কারখানার বর্জ্য পানির কারণে সড়কে বন্যা হয়ে যায়। আমরা আশ্বাস পেলেও সমাধান পাই না। এর জন্য আজকে আমাদের এই প্রতিবাদ। আমরা চাই সরকারের যারা কর্মকর্তারা আছেন তারা উদ্যাোগ নিয়ে এই সড়কে জলাবদ্ধতা মুক্ত করবেন৷
সমাবেশে আরও উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ গার্মেন্টস এন্ড শিল্প শ্রমিক ফেডারেশনের আশুলিয়ার সভাপতি ইসমাইল হোসেন ঠান্ডু, শ্রমিকনেতা ইমন শিকদার, অরবিন্দু বেপারি, বিপ্লব, বাচ্চু, রাজু সহ অন্যান্য সংগঠনের নেতারা।
প্রসঙ্গত, গত বৃহস্পতিবার থেকে টানা ২২ ঘন্টার বৃষ্টিতে ঢাকার প্রবেশ পথ আশুলিয়ার এই গুরুত্বপূর্ণ সড়কটির বাইপাইল থেকে জামগাড় পর্যন্ত পানিতে ডুবে যায়। এতে সড়কে চলাচলরত মানুষ চরম দুর্ভোগ পোহায়।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ